মানসিক খুনী

2+

৮ বছর হবে ওদের সম্পর্কের। পরী ও সুকমল। দু’জনের সম্পর্ক আর ৫ টা সম্পর্কের মতই রাগ ঝগড়া অভিমান এবং সবার শেষে ভালোবাসায় ভরপুর। পরী একটা প্রাইভেট কলেজের guest lacture। আর সুকমল সরকারী চাকুরীজীবী। দু’জনেই প্রাপ্তবয়স্ক। কিন্তু একটা সমস্যা ওদের মধ্যে লেগেই আছে তা হল দূরত্ব। দূরত্ব ভালোবাসার সম্পর্ক। বছরে খুব বেশি হলে ৪ কি ৫ বার দেখা হয় তবুও সম্পর্কটা ওদের দিনের প্রথম শিশিরের মতই সতেজ। কিন্তু ঐ যে কথায় আছে না কোনো কিছুই সম্পূর্ণ ভালো থাকে না। এদের ক্ষেত্রেও তাই। সম্পর্ক এবার পরিণতি পাক তাই চায় পরী, তাই প্রায় সে সুকমল কে  ফোনে বা অনেকবার সামনে ও বলেছে তাদের বিয়ের কথা। কিন্তু সুকমল প্রতিবার কথাটা এড়িয়ে যায় আর বলে,

– “দাঁড়াও, সময় হোক ঠিক হবে”।

আর বোকা মেয়ে টাও তা বিশ্বাস করে যে বোধহয় সময় হয়নি। এদিকে পরীর বাড়ির বড় মেয়ে বিয়ের বয়স হয়েছে তাই বিয়ে দেওয়ার তোড় জোড় আছেই সাথে আছে পারিবারিক মানসিক চাপ। তাও পরী চারিদিক সামলাচ্ছে শুধু একটা কথা মাথায় রেখে “দাঁড়াও সময় হোক, ঠিক হবে”।

দিন-মাস-বছর সব যাচ্ছে কিন্তু সুকমলের বলা “ঠিক সময়” আর বইছেনা। এবারে পরীর পরিবার একটা ভালো প্রতিষ্ঠিত পাত্রের সন্ধান পেয়েছে। আর পরীকে বলেও দিয়েছে।

সুকমলের সময় হচ্ছে না যখন আমরাও আর সময় দিতে পারছিনা তুই এবার ভাব কেমন।

এসব শুনে সে সুকমল কে ফোন করে।

– হ্যালো, বলো ।

– বলছি বাড়ির থেকে খুব চাপ দিচ্ছে। তুমি একটু কথা বলো প্লিজ। আমি আর সামলাতে পারছিনা। প্লিজ বোঝো আমার পরিস্থিতিটা।

– কি বুঝব হ্যাঁ! তুমি সব কিছুতেই হরবর করো। বললাম তো সময় হয়নি। আমি এখন কথা বলতে পারব না বুঝেছ। ঠিক সময় আসুক তার পর।

– কিন্তু আমার যে মানসিক চাপ সেটা একটু বোঝার চেষ্ঠা করো।

– বিয়ে করে নাও। আমি ও তোমার জন্য বসব না। কেউ কারো জন্য আটকায় না। কিন্তু সময় এখনো হয়নি ব্যস।

– (চুপ করে সব শুনল পরী, সে কোনোদিন এই ধরনের কথা তাকে বলেনি আর ভাবেও নি ) তাহলে তুমি কি চাইছ?

– বললাম তো। ওহ্! আমি কৈফিয়ত দিতে পারবনা, OK?

– (চুপ) শুধু চোখ পরীর কথা বলছে। মুখ নয়।

– ওকে আমি রাখছি।

এভাবে সুকমল ফোনটা কেটে দিল।

পরী ও চুপ শুধু চোখ কথা বলল তার।

[বি .দ্র : কোনো মেয়ে যদি কোনো ছেলেকে বিয়ে না করে, তাহলে সমাজ মেয়ে টাকে অনেক বাজে কথা বলে। কিন্তু  কেউ একটু  মেয়েটার মানসিক পরিস্থিতিটা ভেবে দেখে না। মেয়েটার মানসিক চাপ কেউ অনুমান করে না।]

যখন কোনো মেয়ে কোনো ছেলের জন্য অপেক্ষা করতে চায় তখন সমাজ সেই মেয়ের বয়স নিয়ে মাথা ব্যথা করে দেয় মেয়ের পরিবারকে। কেউ সেই ছেলেটার দোষ টা দেখে না।

একজন প্রতিষ্ঠিত ছেলের জন্য একটা মেয়ের জীবন শেষ হতে পারে। কিন্তু সমাজ ঐ মেয়েটাকেই খারাপ বলবে। কেউ সেই মেয়েটার মানসিক খুনীর কথা বলবেনা।

রচনা – প্রিয়াঙ্কা

আপনার লেখা এখানে প্রকাশিত করার জন্য  নীচের বাটন-এ ক্লিক করুন

2+

Leave a Comment

error: Content is protected !!